আজ ২৯শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১২ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

আট কেজি মুরগির দাম ১২ হাজার টাকা! এক হালি ডিমের দাম ২৪০০ টাকা

পলাশ (নরসিংদী) প্রতিনিধিঃ

আমেরিকার বিক্ষ্যাত ব্রাহমা জাতের মুরগি পালন করে সফলতা পেয়েছেন নরসিংদীর পলাশ উপজেলার কাশেম মিয়া নামে এক উদ্যোক্তা।

বিদেশী এ জাতের মুরগি দেখতে যেমন সুন্দর,তেমনি সাধারণ মুরগির চেয়ে ওজনেও রয়েছে কয়েক গুন বেশি।

এক জোড়া ব্রাহমা মুরগি কিনতে ক্রেতাদের গুনতে হয় ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা

আর এই উন্নত জাতের মুরগি পালন করে কাশেম মিয়া রিতিমত এলাকায় তাক লাগিয়ে দিয়েছেন তিনি।

দেখতে সাধারণ মুরগি মনে হলেও এটি আমেরিকার বিক্ষাত ব্রাহমা জাতের মুরগি।

১৮৫০ সাল থেকে ১৯৩০ সাল পর্যন্ত আমেরিকায় মাংসের প্রধান উৎসই ছিল এই মুরগি। প্রাপ্ত বয়সে এক একটি মুরগির ওজন হয় ৭ থেকে ৮ কেজি পর্যন্ত।

আর এই আমেরিকান ব্রাহমা জাতের মুরগি পালন করে সফলতা পেয়েছেন উপজেলার ঘোড়াশাল

পৌর এলাকার পাইকসা গ্রামের কাশেম মিয়া।

আলাপকালে কাশেম মিয়া নরসিংদী পোস্টকে জানান, ২০১৭ সালে সখের বসে প্রবাসী এক বন্ধুর সহায়তায় ২ লাখ ১৩ হাজার টাকা দিয়ে রোমানীয়া থেকে ৫ জোড়া ব্রাহমা জাতের মুরগি কিনে আনেন তিনি ।

এরপর মুরগি থেকে ডিম পেয়ে পরিকল্পনা করেন খামারের।

ইনকিউবেটর মেশিনে ডিম থেকে বাচ্চা তৈরি করে একে একে বাড়াতে থাকেন মুরগির সংখ্যা। গত ৫ বছরে এই খামার থেকে ২০ লাখ টাকার এই মুরগি বিক্রি করেছেন তিনি।

বর্তমানে কাশেম মিয়ার খামারে সাদা ও সোনালী রঙের ৫০ জোড়া ব্রাহমা জাতের মুরগি রয়েছে। এক জোড়া মুরগি ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা দরে বিক্রি করা হচ্ছে। কাশেম মিয়া আরও বলেন, প্রথম টার্কি মুরগি পালন করতাম। হঠাৎ করে ইউটিউবে এ জাতের মুরগি দেখে সখ জাগে এটি পালনে।

প্রথম প্রথম ভাবতাম বাংলাদেশের আবহাওয়ায় এই মুরগি পালন করা সম্ভব হবে কি না। পরে দেখি সাধারণ মুরগির মতোই এগুলো পালন করা যায়। ৬ মাসেই এ জাতের মুরগির পরিপূর্ণ ওজনে হয়ে উঠে। এসব মুরগির ইন্টারনেটে ছবি ছেড়ে বিক্রি করি। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সৌখিন মানুষ এ জাতের মুরগি কিনে নিয়ে যায়। এই মুরগির মাংস ও ডিমের চাহিদা অনেক।

এক জোড়া মুরগি আকার বেধে ২০ হাজার থেকে ৩০ হাজার টাকায় ও বিক্রি করা হয়। এছাড়া এক জোড়া ডিম বিক্রি হয় এক হাজার ২০০ টাকায়


এদিকে দৃষ্টিনন্দন এসব মুরগি দেখতে প্রতিদিনই দূর-দূরান্ত থেকে অনেকেই ছুটে আসছেন কাশেম মিয়ার খামারে।

খামার থেকে পরামর্শ নিয়ে এ জাতের মুরগি পালনে আগ্রহ প্রকাশ করছেন অনেক তরুণ উদ্যোক্তা।

এ মুরগি সম্পর্কে খোঁজ-খবর নিয়ে জানা যায়, ১৮৫২ সালে আমেরিকার অন্যতম রাজনীতিবিদ জর্জ বুরহাম ইংল্যান্ডের রানি ভক্টোরিয়াকে ৯টি ব্রাহমা জাতের মুরগি উপহার দেন। সুন্দর্য্যে কারণে বাংলাদেশেও অনেক স্থানে সৌখিন ভাবে এই মুরগি পালন করে আসছে।

পলাশ উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো শফিকুল আলম জানান, আমেরিকার বিখ্যাত ব্রাহমা জাতের মুরগি বাংলাদেশের আবহাওয়ায় পালন করা সম্ভব। সাধারণ মুরগির মতোই এটি পালন করা যায়। খামারি কাশেম মিয়াকে উন্নত জাতের এই মুরগি বাণিজ্যিক ভাবে পালনে সব ধরণের সহযোগীতা করা হবে।

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ...