আজ ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ছোট মাধবদীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষকে মেরে ফেলার হুমকি, থানায় অভিযোগ 

 

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ নরসিংদীর মাধবদী পৌরসভায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষকে পরিবার সহ মেরে ফেলার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

বৃহস্পতিবার (৮ জুন) দুপুর সাড়ে বারোটায় মাধবদী পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ড ছোট মাধবদী এলাকার মোঃ শাহজাহান মিয়ার স্টেশনারী দোকানের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

এঘটনায় ওইদিন বিকেলে ভুক্তভোগী মোঃ আমিনুল ইসলাম ২ জনের নাম উল্লেখ করে মাধবদী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী (জিডি) রুজু করেছেন।

জিডি নং ৫৬১, তারিখ ৮-৬-২০২৩ ইং।

আসামিরা হলেন, ছোট মাধবদী এলাকার মৃত আব্দুল আজিজ এর ছেলে মোঃ বিল্লাল হোসেন (৪৫) ও বিল্লালের মা মোসাঃ সুফিয়া বেগম (৬৫)।

ভুক্তভোগী মোঃ আমিনুল ইসলাম ছোট মাধবদী এলাকার মৃত রহিম বক্স ওরফে তোতা মিয়া ( আইডি কার্ড মূলে পিতা রহিমা খাতুন) এর ছেলে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, আমিনুল ইসলাম ও বিল্লাল হোসেন এর পরিবারের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় গত ৬/৬/২০২৩ ইং তারিখে আমিনুল ইসলাম তার নামে নামজারিকৃত ভূমিতে গ্রাহক সংকেত নং ১৩৬৮২৩৪ এর পুনঃসংযোগ না দেওয়ার জন্য তিতাস গ্যাস এর ব্যাবস্থাপক বরাবর একটি লিখিত আবেদন পত্র জমা দেন।

এতে বিল্লাল ও তার মা সুফিয়া বেগম ক্ষিপ্ত হয়ে গত বৃহস্পতিবার আমিনুল ইসলামকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং তাকে তার পরিবারের লোকজন সহ মেরে ফেলার হুমকি দেয়। পরে ওইদিন বিকেলে জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে আমিনুল ইসলাম মাধবদী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন।

এব্যাপারে জানতে চাইলে বিল্লাল হোসেন ও তার মা সুফিয়া বেগম তাদের উপর আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমরা গরিব ও অসহায় মানুষ।

আমাদের লোক বল ও অর্থ বল কোনটাই নেই।

তারা জোরপূর্বক আমাদের জমি গ্রাস করতে আমাদের নামে থানায় মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছে।

আমিনুল ইসলাম বলেন, আমার পিতা ১৯৮৪ সালে এ জমিটি আমাকে দলিল করে দেন। পরে আমি তা আমার নিজ নামে নামজারি করি কিন্তু তারা আমার জমির মালিকানা বুঝিয়ে না দিয়ে জোরপূর্বক দখল করে রাখে।

এ নিয়ে এলাকায় বহু দেন দরবার হয়েছে। অবশেষে তারা একটি ভূয়া বন্টন নামা দলিল দেখিয়ে গ্যাস সংযোগ নেয়। গত ৬ জুন তারা যেন পুনরায় সংযোগ চালু করতে না পারে সে জন্য আমি তিতাস গ্যাস বরাবর

একটি আবেদন পত্র দিলে আমাকে তারা স্বপরিবারে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। বর্তমানে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে ও জানান তিনি ।

জিডির তদন্ত কর্মকর্তা এএসআই এস এম নাজমুল হাসান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এব্যাপারে আমরা একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান তিনি।

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ...