আজ ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

জামিনে এসে প্রতিপক্ষকে হুমকী বাড়ির প্রবেশ পথে গাছের ঢাল পালা ফেলে প্রতিন্ধকতার অভিযোগ

বেলাব(নরসিংদী) প্রতিনিধি ঃ
মারধর ভাংচুর ও লুটতরাজের মামলায় আদালত থেকে জামিনে এসে ফের প্রতিপক্ষকে হুমকী ও বাড়ির প্রবেশ পথে জোড়পূর্বক বেড়া দিয়েছে আসামীরা। আসামীদের অব্যহত হুমকীর কারনে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে বলে অভিযোগ করছেন ভুক্তভোগীর পরিবার।
ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার বিন্নাবাইদ ইউনিয়নের বিন্নাবাইদ পূর্বপাঁড়া গ্রামে। এ ঘটনায় থানায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে একটি অভিযোগ দিবেন বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগী মোবারক হোসেন ও তার পরিবার।

জানা যায়,উক্ত গ্রামের মোবারক হোসেন রুকনের সাথে পাশ্ববর্তী বাড়ির মিজানুর ও তার ছেলে মানিক ও খুর্শিদ মিয়ার ছেলে শাহিন মিয়ার সাথে জমি নিয়ে দ্বন্ধ চলে আসছে। এঘটনায় প্রায়ই শাহিন ও মানিক মিয়া মোব্রাক হোসেন রুকন ও তার পরিবারকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করত।

গত ৯ ফ্রেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার সকালে মুর্শিদ মিয়ার ছেলে শাহিন মিয়া,মিজানুরের ছেলে মানিক মিয়া ও জহুর আলীর ছেলে মিজানুর আবারও গালিগালাজ করতে থাকে। গালিগালাজের দৃশ্যটি মোবারক হোসেন রুকনের স্কুল পড়ুয়া ছেলে বেলায়েত হোসেন শিপু মোবাইলে ভিডিও ধারন করার সময় তার উপর অর্তকিত হামলা করে শাহিন,মিজান ও মানিক মিয়া। এসময় তার হাত থেকে মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

এর কিছুক্ষণ পরে উল্লেখিত হামলাকারীরা আরো লোকবল নিয়ে দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে মোবারক হোসেন রুকনের বাড়িতে দ্বিতীয় দফায় হামলা করে। এসময় মোবারক হোসেন রুকনের নবম শ্রেণীতে পড়ুয়া ছেলে বেলায়েত হোসেন শিপুর মাথা ফাটিয়ে দেয় এবং চখের আগাত করে হামলাকারীরা। মূমুর্ষ অবস্থায় শিপুকে প্রথমে বেলাব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে অবস্থার অবণতি হলে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করায় স্বজনরা।

এ ঘটনায় আহত শিপুর ভাই মোশারফ হোসেন দীপু বাদী হয়ে হামলাকারীদের আসামী করে মারপিট,ভাংচুর ও লুটতরাজের একটি লিখিত অভিযোগ করেন বেলাব থানায়। পুলিশ উক্ত অভিযোগ আমলে নিয়ে আসামী শাহিন মিয়া,মানিক মিয়া ও মিজানুর রহমানকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করে।

পরে আসামী মিজানুর ও মানিক মিয়া জামিনে এসে ফের হুমকী দেয় মোবারক হোসেন রুকনের পরিবারকে। এছাড়াও মোবারক হোসেন রুকনের পরিবারের লোকজন যাতে বাড়ি থেকে বের হতে না পারে সেজন্য তারা জোড়পূর্বক বাড়ির প্রবেশ পথে বেড়া দেয়।

সরেজমিনে এলাকায় গেলে এ ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার অনেকেই জানান,শাহিন,মানিক ও মিজানুর তার ভয়ংকর প্রকৃতির লোক।


আহত শিক্ষার্থী শিপুর বাবা মোবারক হোসেন রুকন বলেন,তারা অত্যান্ত খারাপ ও ভয়ংকর প্রকৃতির লোক। তারা আমার ছেলেকে মেরে মাথা ফাটিয়ে দিয়েছে। আমরা তাকে হাসপাতালে নেয়ার পথেও তারা বাঁধা দেয়। এসময় তারা আমার আহত ছেলেকে জোড়পূর্বক ভ্যান গাড়ি থেকে ফেলে দেয়। আমি এদের বিচার চাই।

এব্যাপারে বেলাব থানা অফিসার ইন্চার্জ মোঃ তান়ভীর আহমেদ। বলেন রাস্তায় বেড়া দেওয়ার বিষয়টি আমার জানানেয় তবে জামিনে এসে তারা হুমকির বিষয়ে আজ সন্ধায় একটি জিডি করেছে বাদী পক্ষ।

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ...