আজ ১লা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

নরসিংদীতে যৌনতা ছড়াচ্ছে গ্রীন হলিডে পার্ক

নরসিংদীর মাধবদী থানাধীন পাথরপাড়া গ্রামের ভিতর ছোট্ট পরিসরে গড়ে উঠেছে গ্রীন হলিডে পার্ক। মেহেরপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ সাজনের মালিকানাধীন গ্রীন হলিডে পার্কটি একসময় স্বল্প আয়ের মানুষের বিনোদন কেন্দ্র হিসেবে বিবেচিত হতো। কিন্তু বর্তমানে এখানের অশ্লীলতা এতটাই বেড়েছে যা এলাকাবাসীর জন্য উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এখানে অর্ধ নগ্ন নারীদের অশ্লীল নৃত্যের কারণে চারদিক ছড়িয়ে পড়ছে যৌনতা। এনিয়ে পুরো এলাকা জুড়ে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

পবিত্র ঈদুল আজহার পর থেকে প্রতিদিন উচ্চ শব্দে অশ্লীল গানের সাথে অর্ধ উলঙ্গ নারীদের নাচিয়ে দর্শক মাতানো হচ্ছে।এতে করে আনন্দের নামে চারদিকে যৌনতা ছড়িয়ে পড়ছে বলে অভিযোগ করেছেন এলাকার সচেতন মহল। গ্রীন হলিডে পার্কের খোলামেলা অর্ধউলঙ্গ নারীদের অশ্লীল নৃত্য দেখার জন্য প্রতিদিন সমবেত হচ্ছে উঠতি বয়সের হাজার হাজার তরুন-তরুনী। যা দেখে সমাজের যুবক-যুবতীদের মধ্যে দেখা দিয়েছে সামাজিক অবক্ষয়।
ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যানের এমন কর্মকান্ডে হতবাক হয়ে গেছেন এলাকার সচেতন মহল। কিন্তু তার প্রভাব -প্রতিপত্তি ও একগুঁয়েমির ভয়ে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পায় না।
সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত উচ্চ শব্দে গান বাজনার ফলে শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা ,মুসল্লিদের নামাজ আদায় করাসহ সামগ্রিক কাজকর্ম ব্যাহত হচ্ছে।
রাত গভীর পর্যন্ত উচ্চ শব্দে গান বাজায় সকল শ্রেণী পেশার মানুষের ঘুমের ব্যাঘাত ঘটছে। এলাকাবাসীদের অভিযোগের ভিত্তিতে গতকাল সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রায় রাত নয়টা পর্যন্ত দুইজন অর্ধউলঙ্গ নারী দিয়ে বিভিন্ন গানের তালে তালে শারীরিক অঙ্গভঙ্গি করে অশ্লীল নৃত্য পরিবেশন করা হচ্ছে।
আর এসকল অশালীন নৃত্য দেখার জন্য উঠতি বয়সের ছেলেমেয়েসহ অনেকেই হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন।

এবিষয়ে পাথরপাড়া গ্রামের মোঃ সোয়াইব বলেন, প্রথম অবস্থায় এটা একটি সাধারণ পার্ক ছিল। আস্তে আস্তে এখানে অশ্লীলতা বাড়ছে। প্রথমে শুধু বক্স বাজত এখন বিভিন্ন নর্তকী এনে নাচ গান করানো হয়। যার কারণে পাথরপাড়া, দিঘীরপার এলাকার বিভিন্ন স্কুল ও মাদরাসার ছাত্রদের পড়ালেখার সমস্যা হচ্ছে। সারাদিন বক্স বাজার কারণে ছোট ছোট বাচ্চাসহ সাধারণ মানুষের দিন ও রাতের ঘুম হারাম হয়ে গেছে।

একই গ্রামের মোঃ বকুল বলেন, গানবাজনার জন্য এলাকার মা বোনদের নামাজ পড়তে সমস্যা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন এই পার্কের মালিক সাজন চেয়ারম্যান সাহেব আমাদের এলাকার অভিভাবক ।আমি আবেদন করব তিনি যেন যুব সমাজের দিকে লক্ষ করেন। এখানে নর্তকীদের এনে নাচগান করানো হচ্ছে। যখন আমাদের সন্তানদের স্কুল, কলেজ, মাদরাসায় গিয়ে পড়ালেখা শিখার কথা ঠিক সেই সময়ে নর্তকী নাচ দেখে তারা আজ কি শিখছে? এ কারণে যুব সমাজ আজ ধ্বংস হচ্ছে। পার্ক ভালো বিনোদন কেন্দ্র । আমরাও চাই পার্ক থাকুক কিন্তু এমন একটা পরিবেশ করুন যেন আমাদের গ্রামের পরিবেশ ঠিক থাকে। আমাদের সমাজ নষ্ট করে যদি বিনোদন করেন তাহলে তো গ্রামের পরিবেশ নষ্ট হয়ে যাবে।

দিঘীরপার গ্রামের রাশেদুল হাসান জানান প্রতিনিয়ত মিউজিক ও নাচগানের মাধ্যমে অশ্লীল কাজ করা হচ্ছে।এতে করে আমাদের নামাজের সমস্যা হচ্ছে, বিভিন্ন ধরনের সামাজিক অবক্ষয়ের সৃষ্টি হচ্ছে। এসকল অশ্লীল কাজের জন্য আমরা নিন্দা জানাই। যুবকরা এখানে গিয়ে অনেক সময় মারামারিতে লিপ্ত হচ্ছে। এজন্য এটা যাতে নিয়ন্ত্রিত হয় এ ব্যাপারে প্রশাসনের পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও এ পার্কের অশ্লীল কর্মকান্ড ও নর্তকী নাচ নিয়ে সমালোচনার ঝড় বইছে।
এই সংক্রান্ত এক ব্যক্তির পোস্ট থেকে জানা যায়, একদিনের ব্যবধানে পোস্টটিতে কমেন্টস করেছেন ৫৭ জন। শেয়ার করেছেন ২২ জন। কমেন্টগুলোর ৯৫ শতাংশই এমন কর্মকান্ডের সমালোচনা করেছেন।
কমেন্ট বক্সে জুয়েল আরমান নামে একজন লিখেছেন এই পার্কের প্রধান আকর্ষণ হচ্ছে উলঙ্গ ৩য় লিঙ্গের মানুষের নাচ গান।

আল আমিন আলি নামে একজন লিখেছেন, নিশ্চিত দুঃখ প্রকাশ করছি। সেই সাথে তরুন প্রজন্মের জন্য দুঃখ হচ্ছে।

আতিকুর রহমান ভূইয়া নামে একজন লিখেছেন গতকালকে গিয়েছিলাম তাদের এই বেহায়াপনা কার্যকলাপ দেখে সাথে সাথে বের হয়ে আসি।

হোসেন আলী নামে আরেকজন লিখেছেন মনে হচ্ছে অর্থ কামানোর পাশাপাশি যুব সমাজ ধ্বংসের অভিনব কায়দা। প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ জরুরি।

মোঃ হারিছ লিখেছেন নাউজুবিল্লাহ। দিন দিন মানুষ কেমনে বিবেকহীন হয়ে যাচ্ছে বুঝা বড়ই কঠিন।
এছাড়াও অনেকেই প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

সমালোচিত বিষয়গুলো সম্পর্কে জানতে গ্রীন হলিডে পার্কের মালিক, মেহেরপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান, মেহেরপাড়া ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সভাপতি মামুনুর রশিদ সাজনের কাছে গেলে তিনি বলেন, এখন অনুষ্ঠান চলছে তাই বক্তব্য দিতে পারব না। পরে মুঠোফোনে তার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আপনার কাছে এব্যাপারে কি কেউ বিচার দিয়েছে? আমি আপনার সাথে পরে কথা বলব বলে তিনি কল কেটে দেন।

বিষয়টি সম্পর্কে মাধবদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ রকিবুজ্জামানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আপনারা আগে নিউজ করেন পরে আমরা ব্যবস্থা গ্রহন করব।

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ...