আজ ২৮শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১২ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

বেলাবতে পেঁপে চাষে স্বাবলম্বী হচ্ছেন কৃষকরা

বেলাব(নরসিংদী) প্রতিনিধিঃ নরসিংদীর বেলাবতে পেঁপে চাষে স্বাবলম্বী হচ্ছেন কৃষকরা। পেঁপের চাষ করে এ জেলার অনেক কৃষকই অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হয়েছেন। অন্যান্য ফসলের তুলনায় পেঁপের চাষ করে লাভ বেশি হওয়ায় কৃষকদের এমন আগ্রহ। এবারের মৌসুমে প্রায় ৭০-৮০ হাজার মেট্রিক টন পেঁপে উৎপাদন হবে বলে আশা করছে কৃষি বিভাগ।

সৌদি প্রবাসী মোঃ আমজাদ হোসেন খোকন বলেন, আমি আধা বিঘা জমিতে পেঁপে চাষ করেছি। চারা ও কীটনাশক বাবদ খরচ হয়েছে ১২ থেকে ১৩ হাজার টাকা। এখন বিক্রি করতে পারবো ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা। পেঁপে চাষ করে ব্যয়ের চেয়ে লাভ দ্বিগুণ হবে বলে আশা করছি।

পেঁপে চাষি মোঃ সবুজ মিয়া বলেন আমি ১ বিঘা জমিতে পেঁপে চাষ করেছি। যা খরচ হয়েছে ৪০ হাজার টাকা। এখন বিক্রি করতে পারবো ১ লাখ টাকা। গত বছর এই জমি থেকেই ২ লাখ টাকা বিক্রি করে ছিলাম। দাম কম হওয়াতে এই বছর বেশি সুবিধা করতে পারি নাই।

কৃষক বাদল মিয়া জানান, অন্যান্য ফসলের তুলনায় লাভ বেশি হওয়ায় তিনি পেঁপে চাষের দিকে ঝুঁকেছেন। চলতি বছর তিনি ৭ বিঘা জমিতে পেঁপে গাছ লাগিয়েছেন। প্রথমবার চারা লাগানোসহ বিভিন্ন পরিচর্যায় প্রতিবিঘা জমিতে খরচ হয়েছে ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা। আর এরই মধ্যে নতুন লাগানো ক্ষেত থেকে পেঁপে বিক্রি শুরু করেছেন তিনি। নতুন লাগানো ক্ষেত থেকে ৪ থেকে ৬ লাখ টাকার পেঁপে বিক্রি করতে পারবেন বলে আশা করছেন তিনি।

চলতি মৌসুমে উপজেলার স্থানীয় জাতের পেঁপের পাশাপাশি বারি জাতের শাহিরাচি, কাশিমপুরী, হানিডিউ, পুশাজাজেন্টসহ বিভিন্ন জাতের পেঁপে চাষ করেছেন কৃষকরা। তারা এসব জাতের পেঁপে ক্ষেত থেকে যাতে ভালো ফলন পেতে পারেন, তার জন্য সব ধরনের সহযোগিতা দিচ্ছে কৃষি বিভাগ।

বেলাব উপজেলা কৃষি উপ সহকারী ফাতেমা বেগম বলেন, স্থানীয় পেঁপে চাষিদের কৃষি বিভাগ থেকে বিভিন্ন ধরনের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। একবার জমিতে চারা লাগালে ৩ বছর পর্যন্ত ফলন পাওয়া যায়। প্রথম বছরের পর পরের দুই বছর ক্ষেত পরিচর্যার খরচ খুবই কম লাগে। কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এবারও কৃষকরা পেঁপে চাষে লাভবান হবেন বলে আশা করছি।আমাদের অফিসের পক্ষ থেকে তাদের বিভিন্ন পরামর্শ সহ সহযোগিতা করা হচ্ছে।

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ...