আজ ৬ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৯শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

মনোহরদীতে প্রেমিকার টিকটক আইডিকে কেন্দ্র করে এক প্রেমিকের ছুরিকাঘাতে আরেক প্রেমিক নিহত

নরসিংদী প্রতিনিধিঃ 

নরসিংদীর মনোহরদীতে প্রেমিকার টিকটক আইডির পাসওয়ার্ড জানতে চাওয়ায় শাকিল নামে এক যুবক শরিফ মিয়া (২১) নামে আরেক যুবককে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করেছে। জানা যায় খুনি শাকিল ও নিহত শরিফ উভয়েরই উক্ত মেয়ের সাথে প্রেমের সম্পর্ক ছিল।

গত ১৫ মে সোমবার বিকালে মনোহরদী উপজেলার চন্দনবাড়ি ইউনিয়নের চন্দনপুর গ্রামে প্রেমিকার টিকটক আইডির পাসওয়ার্ড নিয়ে শাকিল ও শরিফের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে শাকিল শরিফকে ছুরি দিয়ে এলাপাথারীভাবে আঘাত করে। পরে মূমুর্ষ অবস্থায় শরিফকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করা হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ বুধবার বিকাল ৫ টায় শরিফের মৃত্যু হয় বলে নিশ্চিত করেন নিহতের নানা ইসমত মিয়া। নিহত শরিফ মিয়া উপজেলার চালাকচর ইউনিয়নের বাঘবের গ্রামের মফিজ মিয়ার ছেলে।

স্হানীয় সুত্রে জানা যায়, মাধুপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণী পড়ুয়া এক মেয়ের সাথে প্রেমের সম্পর্ক ছিল শরিফের। শরিফ প্রবাসে চলে যাওয়ার পর চন্দনবাড়ি ইউনিয়নের চন্দনপুর গ্রামের আতিকুল ইসলামের ছেলে শাকিলের সাথে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন উক্ত মেয়ে।

শাকিল ওই মেয়ের (প্রেমিকার) টিকটিক আইডির পাসওয়ার্ড জানতো । শাকিল প্রেমিকার টিকটিক আইডিতে বিভিন্ন ধরনের আপত্তির ভিডিও আপলোড দিত। এই নিয়ে দেশে থাকা প্রেমিক শাকিল ও প্রবাস ফেরত আরেক প্রেমিক শরিফের মাঝে দ্বন্ধ সৃষ্টি হয়।
প্রবাস ফেরত শরিফ শাকিলকে টিকটিক আইডিতে আপত্তিকর ভিডিও না ছাড়তে নিষেধ করে ও আইডির পাসওয়ার্ড চায়। এক পর্যায়ে শাকিল তা দিতে অস্বীকার করে,এবং ছুরি দিয়ে শরিফকে এলোপাথাড়ি কুপাতে থাকে। ঘটনাস্হলেই শরিফ রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে স্হানীয় লোকজন শরীফকে মনোহরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। তার অবস্থার অবনতি দেখে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল বুধবার বিকালে শরিফ মিয়ার মৃত্যু হয়।

এদিকে অভিযুক্ত শাকিল মাধুপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষার্থী দিচ্ছে ঘটনার পর থেকে সে পরীক্ষায় অনুপস্হিত রয়েছে বলে জানা গেছে।
এ বিষয়ে আহত শরিফের পিতা বলেন,আমার ছেলেকে শাকিল ছুরি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে। আমি এই হত্যাকান্ডের বিচার চাই।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মনোহরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.ফরিদ উদ্দিন বলেন,শুনেছি আহত ছেলেটি আজকে মারা গেছে। এ ঘটনায় থানায় আগেই মামলা দায়ের করা হয়েছে। অভিযুক্ত শাকিলকে গ্রেফতারের চেষ্ঠা চলছে।

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ...